দাদা সাহেব ফালকে’ পুরস্কার পেয়েও ফিরিয়ে দিয়েছিলেন সুচিত্রা সেন

0
(0)

বাংলা সিনেমা জগতের অন্যতম অভিনেত্রী সুচিত্রা সেন অধুনা বাংলাদেশের পাবনা জেলায় জন্মগ্রহন করেন। তিনি ছিলেন বিখ্যাত কবি রজনীকান্ত সেনের নাতনী, আসল নাম রমা দাসগুপ্ত।

১৯৫২ সালে তাঁর অভিনয় জীবন শুরু হয় ‘শেষ কোথায়’ সিনেমা দিয়ে, যেটি কখনও মুক্তি পায়নি। এরপর ১৯৫৩ সালে তিনি নির্মল দের নির্দেশনায় উত্তম কুমারের বিপরীতে অভিনয় করেন ‘সাড়ে চুয়াত্তর’ সিনেমায় |

তাঁর অভিনয় জীবনের ৬০ টি সিনেমার মধ্যে ৩০ টি সিনেমায় তিনি উত্তম কুমারের সাথে। ১৯৫৫ সালে তিনি ‘দেবদাস’ সিনেমায় ‘পারো’র চরিত্রে অভিনয় এর মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন। এই চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন-ও পান।

শিখর স্পর্শ করেন ১৯৬৩ সালে যখন তিনি ‘ MOSCOW INTERNATIONAL FILM FESTIVAL’ এ সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পান ‘সাত পাকে বাঁধা’ সিনেমার ‘অর্চনা’ চরিত্রের জন্য।

১৯৭৫ সালে সঞ্জীব কুমারের বিপরীতে তাঁর অভিনীত সিনেমা ‘আঁধি’ রাজনৈতিক বাধার কারনে ২০ সপ্তাহ আটকে ছিল।
ব্যস্ত সময়সূচীর কারনে সুচিত্রা সেন, সত্যজিৎ রায়ের ‘চৌধুরানী’ সিনেমায় অভিনয় করতে প্রত্যাখ্যান করেন বলে সিনেমাটি আর তৈরিই করেননি অস্কারজয়ী এই নির্দেশক।

১৯৭৮ সালে দীর্ঘ ২৫ বছরের অভিনয় জীবন থেকে অব্যাহতি নেওয়ার পর তিনি আর কখনও জনসমক্ষে আসেননি। এমনকি ২০০৫ সালে ভারতীয় সিনেমার সর্বোচ্চ সম্মান ‘ দাদা সাহেব ফালকে’ পুরস্কার পাওয়া সত্ত্বেও তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন দিল্লী যাত্রা এবং জনসমক্ষে আসা এড়ানোর জন্য। এছাড়াও তিনি পদ্মশ্রী এবং বঙ্গ বিভূষণ পুরস্কারও পান।২০১৪ সালের ১৭ই জানুয়ারি আমাদের সকলের প্রিয় মহানায়িকা পরলোক গমন করেন।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *